অনলাইনে ইনকাম করার সহজ উপায় ২০২১

অনলাইনে ইনকাম করার সহজ উপায় ২০২১

সত্যিই অনলাইনে ইনকাম করা যায়?

বাংলাদেশ থেকে অনলাইনে ইনকাম করার উপায় খুজছেন। আবার অনেকেই অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট থেকে করে সহজে বিকাশে পেমেন্ট পেতে চাইছেন।বাংলাদেশ থেকে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায়গুলো নিয়ে অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি কি একজন ছাত্র? এই পোষ্টটি তাহলে আপনার জন্যই। আপনি যদি আমাদেরকে ফলো করেন তাহলে আপনি পড়ালেখার বা চাকরির পাশাপাশি অনলাইনে ইনকাম হতে বাড়তি কিছু আয় করতে পারেন। আসলে বর্তমানে অনলাইনে ইনকাম এর জন্য বিভিন্ন মাধ্যম রয়েছে ।

সব গুলোর মধ্য থেকে আমি আজকে আপনাদেরকে দেখাব আপনি সহজে কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায়। বর্তমানে প্রযুক্তির এর যুগে মানুষ সকালে ঘুম থেকে উঠার পর থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত প্রযুক্তির উপরে নির্ভরশীল। মানুষের এই প্রযুক্তি ও অনলাইন নির্ভর মানসিকতা ইন্টারনেটে ইনকামের অনেক দার উম্মোচন করেছে। খুব সহজেই মানুষ ভালো একটা পরিমানের অর্থ অনলাইন থেকে আয় করছে। দেশের লাখ লাখ মানুষ এখন এই অনলাইনে ইনকাম (Online Income) এর উপরে নির্ভরশীল।

অনলাইনে ইনকাম

অনলাইনে টাকা ইনকাম করার বিষয়টি ১০ বছর আগে যতোটা কঠিন ছিল, এখন কিন্তু তার থেকে অনেক সহজ। ডিজিটাল বাংলাদেশের দিকে এগিয়ে যাওয়া আমাদের এই প্রাণের প্রিয় বাংলাদেশে বিভিন্ন সমস্যার কারনে আজ থেকে ১০ বছর আগেও অনলাইনে ইনকাম করার বিষয়টি কেউ ভাবতেও পারতো না। কিন্তু সেই স্বপ্ন আজকে সত্যিই প্রমাণিত হচ্ছে। অনলাইন থেকে বর্তমানে মানুষ শুধু অনলাইনে ইনকাম করে এই ইনকাম দিয়েই স্বচ্ছলতা আসছে অনেক পরিবারে।

কিভাবে আপনি অনলাইনে ইনকাম করবেন ?

অনেক লোক রয়েছে যারা অনলাইন হতে প্রতি মাসে ভালোমানের টাকা ইনকাম করছে। আবার এমনো কিছু ব্যক্তি আছে যারা অনলাইনে ইনকাম করে তাদের পরিবারেরে ভরণ-পোষণ সহ বিলাসিতার জীবন যাপন করছে। সত্যি কথা বলতে ঘরে বসে স্বাধীনভাবে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার এ সুযোগ কিন্তু খুব কম পেশায় পাওয়া যায়। অনলাইনে ইনকাম করে রাতারাতি কোটিপতি হয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই।

যারা অনলাইনে ইনকাম করতে চান তাদের জন্য প্রায়ই একটা কথা বলি অনলাইন আয় এতটা সহজ উপায় নয়। কিন্তু আবার সেটা বলিনি যে এটা তেমন কঠিন কোন কাজ। আপনি যে কোন মাধ্যম বা উপায় অবলম্বন করে অনলাইনে টাকা আয় করতে চাইলে আপনার অবশ্যই প্রয়োজন হবে দক্ষতার। দক্ষতা বা অভিজ্ঞতা ছাড়া কোন কাজ করলে সেটা থেকে ভাল ফলাফল আশা করা সম্ভব নয়। হোক সেটা অনলাইন বা অফলাইন, ছোট বা বড় যেকোনো ধরনের কাজ। ঠিক তেমনভাবে একটি বিষয়ে ভালো দক্ষতা ছাড়া অনলাইন থেকে টাকা আয় করা সম্ভব হবে না।

আপনাকে ঘরে বসে আয় করার উপায়গুলো বিষয়ে অনেক ভালো অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। যদি কেউ আপনাকে অনলাইনে ইনকাম করার লোভনীয় অফার দেয় তাহলে আপনি তার ফাঁদে পা দিবেন না। আপনি তার অফারকে বিশ্বাস না করে আপনার কাজের প্রতি বিশ্বাস রাখুন। আপনার কাজের প্রতি যদি আপনার অগাধ বিশ্বাস থাকে তাহলে আপনি অনলাইন আর অফলাইন নাই যে কোন কাজে আপনি ভাল করতে পারবেন।

অনলাইনে আয় করতে আরও পড়ুন

·               কিভাবে বিকাশে টাকা আয় করা যায়
·             মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট
·             কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায় 
·              গেম খেলে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট 

অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম

Covid-19 রোগের কারণে আমরা অনেকেই বর্তমানে বাসা থেকে বের হতে পারছি না। এতে একদিকে যেমন প্রতিদিনের যানজট এড়ানো গিয়েছে তেমনি পরিবারের অন্য সদস্যদের সাথেও আমাদের একটি ভালো বন্ডিং তৌরি হয়েছে। পরিবারকে সময় দিয়ে যেভাবে ফ্যামিলি লাইফটাতে প্রাণ নিয়ে আসতে পারছি তেমনি বাসায় বসেই যদি অনলাইনে ইনকাম করা যায়। সেক্ষেত্রে মন্দ কি!

অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম করতে আপনার যদি ধৈর্য থাকে, এবং আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট কাজে পারদর্শী হয়ে উঠতে পারেন, সেক্ষেত্রে অনলাইন থেকে অনেক বড় পরিমানের অর্থ প্রতিমাসে আপনি ইনকাম করতে পারবেন। আপনার লেখা-পড়া বা কাজের ফাঁকে কিংবা চাকরির পাশাপাশি অবসর সময়ে ২/৩ ঘন্টা ব্যয় করে মাসে মোটামুটি ভালোমানের স্মার্ট এমাউন্ট অনলাইনে ইনকাম করতে সক্ষম হবেন।

আধুনিক এই বিশ্বে এখন অফিস আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে প্রায় সকল ক্ষেত্রেই অধিকাংশ কাজ অনলাইনের আওতাভুক্ত হচ্ছে। আগে আপনি যদি কোনো একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির বা চাকরীর জন্য আবেদন করতে যেতেন, সেটি আপনাকে নিজে এসে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফর্ম নিতে হতো।

কিন্তু এখন আপনি দেশের যে কোনো প্রান্তে থেকেই অনলাইনে ভর্তি ফর্ম পূরণ করতে পারবেন। চাকরির আবেদনের ক্ষেত্রেই এই বিষয় এখন। এসব বিভিন্ন জায়াগায় বিভিন্ন কাজ অনলাইনে সম্পাদনের জন্য অনলাইনে ইনকামের বিভিন্ন সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এই কাজ করার জন্য শুধু আপানার প্রয়োজন একটি ডিজিটাল ডিভাইস।

অনলাইনে ইনকাম বিকাশে পেমেন্ট ২০২১

অনলাইনে ইনকাম বিকাশে পেমেন্ট নেওয়ার কিছু কৌশল নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করব। আমরা বাংলাদেশীরা যখন অনলাইনে কোন কাজ করে টাকা আয় করতে যাই তখন আমাদের সবার আগে ভাবতে হয় পেমেন্ট মাধ্যম নিয়ে। কারন বাংলাদেশের সব ধরনের পেমেন্ট এভেলেবেল নয়। পেপাল বাংলাদেশে অনুমোদিতও নয়। যার কারণে সকল ধরনের ইন্টারন্যাশনাল সাইটে কাজ করা সম্ভব হয়ে উঠে না।

কিন্তু তাই বলে আমরা পিছিয়ে নেই? আমাদের বাংলাদেশে বিকাশ পেমেন্ট এভেলেবেল। তাই অনলাইনে ইনকাম বিকাশে পেমেন্ট নিতে তার কৌশলগুলো আলোচনা করব।

বাংলাদেশে বিকাশ এবং ডাচ বাংলা অনলাইন ব্যাংকিং পেমেন্ট চালু আছে। পেওনিয়ার বাংলাদেশে অনুমোদিত যার মাধ্যমে দেশের বাইরের ক্লায়েন্ট এবং মার্কেটপ্লেস থেকে পেমেন্ট গ্রহণ করা যায়।

Payoneer: পেওনিয়ারের রিসিভিং ব্যাংক একাউন্টগুলো দিয়ে আমরা সহজেই দেশের বাইরের ক্লায়েন্ট এবং মার্কেটপ্লেস থেকে পেমেন্ট গ্রহণ করতে পারবো। ঠিক যেভাবে আমরা বাংলাদেশের এক ব্যাংক থেকে আরেক ব্যাংক এ টাকা ট্রান্সফার করি। আপনার ক্লায়েন্ট আপনাকে আমেরিকান ডলার, ইউরো, পাউন্ড, চাইনিজ ইউয়ান, জাপানিজ ইয়েন, অস্ট্রেলিয়ান ডলার, ক্যানাডিয়ান ডলার এবং ম্যাক্সিকান পেসো কারেন্সিতে পে করতে পারবেন। আপনার বিদেশী ক্লায়েন্টদের কাছে পেমেন্টের অনুরোধ পাঠান এবং সরাসরি লোকাল ব্যাংক ট্রান্সফার, ক্রেডিট কার্ড বা এসিএইচ ব্যাংক ডেবিটের মাধ্যমে পেমেন্ট গ্রহণ করুন।

কিভাবে অনলাইনে ইনকাম বিকাশে পেমেন্ট নিতে হয় তার কৌশলগুলো হলঃ

ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইনে ইনকাম

অনলাইনে আয়ের ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইনে ইনকাম করার বিষয়টি সবচেয়ে জনপ্রিয়। বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সারদের দক্ষতার ওপর ভিত্তি করে ফ্রিল্যান্সইং কাজের সুযোগ দেয় কয়েকটি ওয়েবসাইট। সেখানে অ্যাকাউন্ট খুলে দক্ষতা অনুযায়ী কাজের জন্য আবেদন করতে হয়। কাজদাতা তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী ফ্রিল্যান্সারদের সাথে যোগাযোগ করে ফ্রিল্যান্সারকে কাজ দেয়।বাংলদেশের বেকারত্ব কমাতে এই খাতটি অনেক বড় ভুমিকা পালন করছে এবং সাথে সাথে অনেক দক্ষ মানুষ এই খাতে কাজ করে আমাদের দেশকে বিশ্ব মানচিত্রে উজ্জ্বল করছে ।

ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে আপনি কত টাকা উপার্জন করতে পারবেন তা আপনার কাজের দক্ষতার উপর নির্ভর করবে। আপনার কাজের মান যত ভাল হবে, ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটে আপনি আরও বেশি কাজ পাবেন এবং আপনি যত বেশি কাজ পাবেন, তত বেশি অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হবেন। এখানে আপনার দক্ষতার সাথে আপনার যোগ্যতা প্রমাণ করে কাজের মাধ্যমে যে পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন তার পরিমাণ বাড়াতে হবে।

ফ্রিল্যান্সাররা সাধারণত ঘন্টা, দিন এবং সপ্তাহগুলিতে চুক্তির মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করে। এই ক্ষেত্রে, ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটে যত ভাল অবস্থান, তত বেশি কাজ সে পেতে পারে এবং আরও বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারে।

ফ্রিল্যান্সিং

জনপ্রিয় ৩ টি  ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট

অনলাইনে ইনকামের মার্কেটপ্লেসের মধ্যে বর্তমানে নিচের ৫ টি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস সবচাইতে জনপ্রিয়। আপনি এই মার্কেটপ্লেসে একাউন্ট করে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করতে পারেন।

অনলাইনে আয় করতে আরও পড়ুন

·               কিভাবে বিকাশে টাকা আয় করা যায়
·             মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট
·             কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায় 
·              গেম খেলে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট 

১। ফাইভার – Fiverr.Com

বর্তমানে বিশ্বের সবচাইতে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস হচ্ছে ফাইভার। বাংলাদেশের অধিকাংশ ফ্রিল্যান্সাররা ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক্স ডিজাইন, লোগো ডিজাইন, ভয়েস রেকর্ড, আর্টিকেল লেখা, ডিজিটাল মার্কেটিং, সোশ্যাল মার্কেটিং সহ আরো বিভিন্ন ধরনের কাজ ফাইভারে কাজ করে। ফাইভারে ৫ ডলার থেকে শুরু করে অনেক উচ্চ মূল্যের প্রজেক্ট পাওয়া যায়।

২। আপওয়ার্ক – Upwork.Com

আপওয়ার্ক বিশ্বের আরেকটি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস। এটি প্রথমে ওডেস্ক নামে কার্যক্রম শুরু করে। ২০১৫ সালে সাইটটি ওডেস্ক নাম পরিবর্তন করে আরেকটি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম ‘ইল্যান্স’ আপওয়ার্কের সাথে একীভূত হয়ে আপওয়ার্ক নাম দেয়।

৩। ফ্রিল্যান্সার ডটকম – Freelancer.Com

ফ্রিল্যান্সার ডটকম হচ্ছে একদম প্রথম সারিতে থাকা একটি অনলাইন ভিত্তিক জব মার্কেটপ্লেস, যেখানে ফিক্সড প্রাইস এবং আওয়ারলি রেটের প্রজেক্ট পাওয়া যায়। এখানেও প্রচুর পরিমানে অনলাইন জব পাওয়া যায়।

ওয়েবসাইট থেকে অনলাইন ইনকাম

আপনি খুব ভালো লেখালেখি করতে পারেন? তাহলে আপনি ব্লগ সাইট বানিয়েও সেখান থেকে উপার্জন করতে পারেন। তবে যেকোন বিষয় নিয়ে লিখলেই যে ‘চ্যালচ্যালাইয়া’ টাকা আসতে থাকবে বিষয়টা তা নয়। আপনাকে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স/ভিজিটর ধরে রেখে তাঁদের মনের মতো টপিক নিয়ে লেখা লেখি করতে হবে যেন বেশী সংখ্যক মানুষ আপনার ব্লগ/আর্টিকেল পড়ে। ধীরে ধীরে যখন পাঠক বাড়তে থাকবে ততো বেশীই গুগল আপনাকে গুরুত্ব দিবে। আর গুগল আপনাকে গুরুত্ব দেওয়ার অর্থ হচ্ছে যখন কেউ গুগল সার্চ ইঞ্জিন থেকে আপনার লিখা টপিক রিলেটেড কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করবে আপনার ব্লগ সাইটের লিংক গুগল সার্চ রেজাল্টের প্রথম পেইজে চলে আসবে।

আর ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন তখন থেকে যখন আপনার ব্লগ সাইট গুগল এডসেন্স প্রগ্রামের জন্য এপ্রুভাল পাবেন। যেমনটা আমাদের ওয়েবসাইটে দেখতে পাচ্ছেন। একবার এপ্রুভাল পাওয়ার পর গুগল এডসেন্সের কোড ব্লগ সাইটে বসানোর প্লেসমেন্ট অনুযায়ী আপনার অডিয়েন্সরা আপনার ব্লগ পেইজে লেখার মাঝে মাঝে, বা সাইটের পাশের সাইডবার এ বিজ্ঞাপন দেখতে পারবে। আর ইউটিউবের মতোই ইমপ্রেশন ও ক্লিকের উপর নির্ভর করে আপনার এডসেন্সে ($) জমতে শুরু করবে।

আপনি চাইলে ইউটিউব থেকে ফ্রিতে ভিডিও দেখে বা ভালো কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়েব ডিজাইন কোর্স করেও শিখতে পারেন ওয়েব ডিজাইনিং।

ওয়েবসাইট থেকে অনলাইন ইনকামের আরও কিছু উপায়ঃ

  • ওয়েবসাইট সাবস্ক্রিপশন থেকে উপার্জন
  • ডিজিটাল প্রোডাক্ট বানিয়ে উপার্জন
  • এফিলিয়েট মার্কেটিং করে 
  •  ড্রপশিপিং এর মাধ্যমে আয়

YouTube হতে টাকা আয়

বাংলাদেশের অনেক বড় বড় ইউটিউবার আছে। এদের কারো কারো মাসের ইনকাম ২০ থেকে ২৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। আপনিও চাইলেই ইউটিউব ভিডিও বানিয়ে ইনকাম করা শুরু করতে পারেন। ইউটিউব থেকে ইনকামটা আসবে গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে।

YouTube হতে আয়

অনলাইনে আয় করার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে YouTube। এখান থেকে যে কোন বয়সের লোক খুবই সহজেই টাকা ইনকাম করতে পারেন। ইন্টারনেট বিশ্বের জনপ্রিয় ১০টি ওয়েবসাইটের মধ্যে YouTube হচ্ছে একটি। আপনি ইচ্ছে করলেই এখান থেকে কম সময় ব্যয় করে অল্প অভীজ্ঞতা নিয়ে মাসে ভালো মানের টাকা অনলাইনে ইনকাম করতে পারেন। এই জন্য আপনাকে প্রথমে বিভিন্ন ভাল মানের ভিডিও YouTube এ আপলোড করতে হবে। ভিডিও তৈরি করার জন্য আপনার মোবাইল ফোনকে ব্যবহার করতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমন প্রিয় লোক হন তাহলে বিভিন্ন সুন্দর সুন্দর প্রকৃতিক দৃশ্যগুলো আপনার মোবাইলের ক্যামেরায় ফ্রেমবন্দী করেও YouTube এ আপলোড করতে পারেন। অথবা আপনি যে বিষয় ভালভাবে জানেন সে বিষয়ে বিভিন্ন ভিডিও টেউটরিয়াল তৈরী করেও কাজটি করতে পারেন।

তবে আপনি যদি একজন দক্ষতা সম্পন্ন ভালো Youtuber হন এবং প্রফেশনাল ভাবে আপনার ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করে থাকেন তাহলে কিছুদিন যাওয়ার পর ভিডিও আপলোড করে প্রতিমাসে ৫০০ থেকে ১০০০ ডলার আয় করা এমন কোন কষ্টের ব্যাপার হবে না। এরপর আস্তে আস্তে যখন আপনার জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে আপনার আয়ের পরিমাণ তত বাড়তে থাকবে। তাই আমি আপনাকে ব্যক্তিগতভাবে সাজেস্ট করবো আপনি যদি অনলাইনে ইনকাম করতে চান তাহলে অবশ্যই ইউটিউব চ্যানেল খোলার চেষ্টা করতে পারেন।

 ছবি বিক্রি করে অনলাইনে ইনকাম

আপনি একজন ভালোমানের ফটোগ্রাফার হলে অনলাইনে ছবি বিক্রি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি চাইলে আপনার এই মোবাইলের মাধ্যমে খুব সহজেই অনেক অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

সেক্ষেত্রে আপনাকে শুধু বিভিন্ন আকর্ষণীয় জিনিসের ছবি তুলতে হবে। সেটা আপনি আপনা মোবাইল ফোন দিয়েও তুলতে পারেন আবার ক্যামেরা দিয়েও তুলতে পারেন। তারপর চাইলে একটু এডিট করে অথবা “র” (Raw) ফাইলই বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আপলোড করে সেখান থেকে এক একটি ছবির জন্য ৫০ ডলার থেকে শুরু করে ৫০০ ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারেন।

ছবি বিক্রি করে আয়

আপনার কাছে ভালোমানের ছবি থাকলে সেগুলো ঘরে বসে অনলাইনের বিভিন্ন ছবি শেয়ারিং মার্কেটপ্লেস বা স্টক ইমেজ সাইটগুলোতে আপলোড করে বিক্রি করে দিতে পারবেন।

আপনাকে প্রথমে কোন একটি বা দুটি স্টক ইমেজ মার্কেটপ্লেসে একটি ফ্রি একাউন্ট তৈরি করে সেখানে আপনার ভালোমানের কয়েকটি ছবি আপলোড করতে হবে। ছবি আপলোড করার পর ওয়েবসাইট হতে আপনার ছবিগুলোর কোয়ালিটি, পিক্সেল ও আনুষাঙ্গিক বিষয় যাচাই করার পর তাদের কাছে ভালো মনেহলে, তারা আপনার প্রোফাইল অনুমোদন করবে। আপনার প্রোফাইল অনুমোদন হলে তখন আপনি ছবি আপলোড করতে পারবেন।

অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম

অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম করার জন্য আপনার ধৈর্য এবং কাজের পারদর্শীতা আপনাকে লাখ লাখ টাকা অনলাইন থেকে ইনকাম করতে সাহায্য পারবেন।

আমাদের দেশের বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সার থেকে শুরু করে অনেক মানুষই বর্তমানে অনলাইন ইনকামের সাথে জড়িত। বাংলাদেশের অনলাইন ইনকাম সাইটগুলোর মধ্যেও অনেক ভালো সাইট রয়েছে। এখানে অনলাইন ইনকামের এর সেরা ৪টি উপায় এবং বিভিন্ন অনলাইন ইনকাম টিপস আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি। আপনি কোন পদ্ধতিতে কাজ করতে চাচ্ছেন এটা আপনার সিদ্ধান্ত।

এটা গ্যারান্টি দিতে পারবো না যে আপনি শুরুতেই লাখ লাখ টাকা অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন না।  তবে আপনার যদি ধৈর্য থাকে, এবং আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট কাজে পারদর্শী হয়ে উঠতে পারেন, সেক্ষেত্রে অনলাইন থেকে অনেক বড় পরিমানের অর্থ প্রতিমাসে আপনি ইনকাম করতে পারবেন। সত্যি কথা বলতে ঘরে বসে স্বাধীনভাবে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার এ সুযোগ কিন্তু খুব কম পেশায় পাওয়া যায়।

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করা যাবে কি ?

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করা যাবে কি ? এই প্রশ্নের জবাবে আমার উত্তর না না না !! আপনি মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয় করতে পারবেন না। কারন এটার বড় উদাহরন আমি নিজে। ইউটিউবের অনেক ভিডিও দেখে ভেবেছিলাম মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করব। কিন্তু প্রায় ১ বছরের ইনকাম হল জিরো। তবে এটা বলতে পারি আপনি চাইলে প্রতি মাসে অল্প পরিমান ইনকাম করতে পারেন।

আমি বলছি না যে মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে একদমই আয় করা যাবে না। অনেক বড় বড় ইউটিউবার রয়েছেন যারা শুধুমাত্র মোবাইল দিয়ে ভিডিও করেই আজকে অনেক লাখ লাখ সাবস্ক্রাইবার ও ভিউস পেয়েছেন। এমনও অনেকে রয়েছেন যারা শুধুমাত্র একটি মোবাইল দিয়েই ফেসবুক একটি পেজ পরিচালনার মাধ্যমে তাদের অনলাইন ব্যবসা দিনকে দিন বড় করেই তুলছেন। 

কিন্তু সত্যি কথা বলতে আপনি যদি সত্যিকার অর্থেই অনলাইন থেকে ভালো আয় করতে চান তাহলে কিন্তু আপনার অবশ্যই একটি ভালো মানের কম্পিউটারের প্রয়োজন পড়বে। তা না হলে আপনার পক্ষে প্রফেশনালভাবে অনলাইনে ইনকাম করাটা অনেকটাই কষ্টকর হয়ে যাবে। 

অনলাইন ইনকামের শেষ কথা

আপনি অনলাইনে ইনকাম বাসায় বসেই শুরু করতে পারেন। আপনার যদি কাজের পারদর্শী থাকেন তাহলে এখনই অবসর সময়গুলো কাজে লাগিয়ে ফেলুন। আর যদি স্কিল ডেভলপমেন্ট এর প্রয়োজন হয় সেক্ষেত্রে ইউটিউব, অনলাইন প্ল্যাটফর্ম কোন একটা সেক্টরে কাজ করছেন এরকম ইন্সট্রাকটর এর কাছে মেন্টরশীপ নিন।

অনলাইনে আয় করতে আরও পড়ুন

·               কিভাবে বিকাশে টাকা আয় করা যায়
·             মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট
·             কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায় 
·              গেম খেলে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট 

আশা করি এই আর্টিকেলটিতে আলোচিত সকল বিষয়ই আপনারা সম্পূর্ণভাবে বুঝতে পেরেছেন। তারপরও যদি কোনো বিষয়ে কোনো প্রশ্ন থাকে সেটি কমেন্ট বাক্সে জানাতে ভুলবেন না। আর এই আর্টিকেলটি যদি আপনার একটুও উপকার করে থাকে তাহলে প্রিয়জনদের কাছে শেয়ার করতে ভুলবেন না। শুভ হোক আপনার অনলাইন ইনকাম যাত্রা।

%d bloggers like this: