দ্রুত ডায়াবেটিস কমানোর উপায় বা ডায়াবেটিস সারানোর উপায়

দ্রুত ডায়াবেটিস কমানোর উপায় বা ডায়াবেটিস সারানোর উপায়

দ্রুত ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি? কিভাবে ডায়াবেটিস চিরতরে নিরাময় হবে? ডায়াবেটিস একটি দীর্ঘস্থায়ী রোগ যা বিশ্বব্যাপী লক্ষ লক্ষ মানুষকে এটি প্রভাবিত করে। চিরতরে ডায়াবেটিস সারানোর উপায় না থাকলেও নিয়ন্ত্রনে রাখার অনেক উপায় আছে। অনিয়ন্ত্রিত ক্ষেত্রে অন্ধত্ব, কিডনি ব্যর্থতা, হৃদরোগ এবং অন্যান্য গুরুতর অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে।

যখন কোনও ব্যক্তির ডায়াবেটিস হয়, তখন তার দেহে পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি হয় না বা এটি সঠিকভাবে ইনসুলিন ব্যবহার করতে পারে না তাই গ্লুকোজ রক্তে জমা হয়। উচ্চ মাত্রায় রক্তে শর্করার কারণে ক্লান্তি থেকে শুরু করে হৃদরোগ পর্যন্ত অনেকগুলি লক্ষণ দেখা দিতে পারে। স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া রক্তে শর্করাকে নিয়ন্ত্রণ করার একটি ভাল উপায়। শরীর থেকে আস্তে আস্তে শর্করা শুষে নেয় এমন খাবার এবং পানীয়গুলি সর্বোত্তম কারণ তারা রক্তে শর্করায় হঠাৎ স্পাইক এবং ডাইপ সৃষ্টি করে না। আসুন জেনে নিই চিনি কমাতে ঘরোয়া উপায়

Table of Content

১৬ টি ডায়াবেটিস কমানোর উপায়

ডায়াবেটিস কমাতে এখানে কিছু প্রাকৃতিক এবং আয়ুর্বেদিক ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যার সাহায্যে আপনি আপনার সুগার স্তর প্রাকৃতিকভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন।

১. করলা দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

ডায়াবেটিস কমাতে তেতো একটি ভাল ঘরোয়া উপায়। করলা হলো – ইনসুলিন-পলিপেপটাইড-পি সমৃদ্ধ, এটি হাইপারগ্লাইসেমিয়ার মাত্রা বৃদ্ধি করার ক্ষমতা রাখে। করলাতে ক্যারোটিন এবং মমর্ডিসিন নামক দুটি প্রয়োজনীয় যৌগ থাকে যা রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ যৌগিক। ডায়াবেটিস কমাতে সপ্তাহে একবার করলা তরকারি হিসাবে ব্যবহার করুন। এ ছাড়া আপনি করলার টুকরোগুলি কেটে নিন এবং বীজ বের করার পরে কাটা করলা একটি ব্লেন্ডারে রেখে দিন এবং রস তৈরি হওয়া পর্যন্ত নাড়ুন। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এই রস একটি ছোট গ্লাস পান করুন। এটির সাহায্যে আপনি আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হবেন।

আরও পড়ুনঃ-

২. আমের পাতা দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

আমের পাতা আপনাকে দেহে ডায়াবেটিসের পরিমাণ কমাতে সহায়তা করে। রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সূক্ষ্ম ও কোমল আমের পাতাগুলি ব্যবহার করা যেতে পারে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ এবং চিকিত্সার জন্য তাজা আমের পাতা হ’ল কার্যকর ঘরোয়া উপায়। আমের পাতায় ভিটামিন সি, এ এবং ট্যানিন থাকে যা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ডায়াবেটিসের প্রাথমিক চিকিত্সায় সহায়তা করে। ডায়াবেটিস কমাতে আমের পাতাগুলি ধুয়ে শুকিয়ে গুঁড়ো করে নিন। প্রতিদিন সকালে ও রাতে এই গুঁড়ো জল দিয়ে পান করুন। এক গ্লাস জলে কিছু তাজা আমের পাতা সিদ্ধ করে সারা রাত ঠান্ডা হতে দিন। সকালে খালি পেটে এর জল পান করুন।

৩. নিমের পাতা দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

নিমের তেতো পাতা ডায়াবেটিসের কার্যকর কার্যকর নিরাময় যা ভারতে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। নিম বিটা কোষগুলিতে ইনসুলিন রিসেপ্টর সংবেদনশীলতা বাড়ায় যা রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করে এবং হাইপোগ্লাইকাইমিক ড্রাগের উপর নির্ভরতা হ্রাস করে। নিমকে শরীরের দ্বারা ইনসুলিনের প্রয়োজনীয়তা 60% পর্যন্ত হ্রাস করতে দেখা গেছে।

৪. আমলকি দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

আমলকিতে পাওয়া ঔষধি গুণাগুণ আপনাকে ডায়াবেটিস কমাতে সহায়তা করতে পারে। আমলকি Vitamin -C এর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উৎস এবং এটি আপনার অগ্ন্যাশয়কে ভাল ইনসুলিন তৈরি করতে সহায়তা করে যাতে আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা ভারসাম্যপূর্ণ হতে পারে। ডায়াবেটিস কমাতে, 2-3 আমলকি নিন এবং সেগুলি পিষে নিন এবং পিষে রস বের করে নিন। একটি কাপ জলে প্রায় 2 চা চামচ এই রস মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে পান করুন। এ ছাড়া রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাতে এক কাপ করলার রস এবং ১ টেবিল চামচ কুঁচির রস মিশিয়ে প্রতিদিন পান করুন। আপনিও প্রতিদিন কাঁচা আমলকি খেতে পারেন।

৫. মেথি দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

মেথি হ’ল ডায়াবেটিস কমাতে সবচেয়ে সহজ ও সহজ ঘরোয়া উপায়। মেথি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে, গ্লুকোজ সহনশীলতা উন্নত করতে এবং রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করতে ব্যবহার করা যেতে পারে কারণ এতে ফাইবার বেশি থাকে। এটি খেলে আমাদের হজম শক্তি হ্রাস হয়, যাতে রক্তে সুগার সঠিকভাবে শুষে যায়। এটি টাইপ -১ এবং টাইপ -২ ডায়াবেটিস উভয়ই নিয়ন্ত্রণে কার্যকর, মেথি ভারতীয় রান্নাঘরে একটি সাধারণভাবে ব্যবহৃত ঔষধি যার অনেক উপকারিতা রয়েছে। এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে, গ্লুকোজ সহনশীলতা উন্নত করতে, রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস এবং গ্লুকোজ হজমের জন্য ইনসুলিনের নিঃসরণকে উত্সাহিত করতে সহায়তা করেত।

ডায়াবেটিস হ্রাস করার ঘরোয়া উপায় হিসাবে ২ চা চামচ মেথি বীজ সারারাত জলে ভিজিয়ে রাখুন এবং প্রতিদিন সকালে খালি পেটে মেথি বীজ দিয়ে সেই জল পান করুন। এ ছাড়া প্রতিদিন মেথি বীজের গুঁড়ো গরম বা ঠান্ডা পানি বা দুধের সাথে খান।

৬. কালজাম দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

Black Plam বা কালোজাম রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে ব্যাপক সাহায্য করতে পারে, কারণ এতে অ্যান্টোসায়ানিনস, এলাজিক এসিড এবং হাইড্রোসিলাইলেবল ট্যানিনস (হাইড্রোলাইজেবল ট্যানিনস) রয়েছে যা এক ধরণের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। কালোজামের প্রায় প্রতিটি অংশই যেমন – কালোজামের পাতা এবং বীজ ডায়াবেটিস পীড়িত লোকদের জন্য একপ্রকার সুপারফুড। গবেষণায় দেখা গেছে যে এই গাছের বীজের হাইপোগ্লাইসেমিক প্রভাব রয়েছে, যার অর্থ তারা রক্তের সুগার এবং মূত্রের সুগার দ্রুত হ্রাস করে, যদিও এটি সাধারণ স্তরের নীচে নয়। আপনি বেরি এর শুকনো বীজ গুঁড়া তৈরি করতে পারেন এবং এই গুঁড়াটি দিনে দুবার জল দিয়ে খেতে পারেন।

৭. সজনে পাতা দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

সজনে পাতা বা সজনে ডাটা সুগার কমাতে কার্যকর ঘরোয়া উপায়। সজনে পাতা রক্তে শর্করার মাত্রা বজায় রাখার এবং শক্তি বৃদ্ধিতে সক্ষমতার জন্য পরিচিত। সজনে পাতায় এমন পুষ্টি থাকে যা শরীরে ইনসুলিনের ক্ষরণ বাড়ায়। এই পাতাগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতেও সমৃদ্ধ এবং এন্টি-ইনফ্ল্যামেটরি গুণ রয়েছে। ডায়াবেটিস কমাতে, আপনার খাদ্য তালিকায় 50 গ্রাম তাজা সজনে পাতা অন্তর্ভুক্ত করুন। এই পাতাগুলি রক্তে সুগার 21% হ্রাসের পাশাপাশি আপনার খাবারের স্বাদ বাড়িয়ে তুলবে। এছাড়াও আপনি এটি সালাদ হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন।

৮. ডায়াবেটিস কমানোর উপায় — “সূর্যের আলো”

সূর্যের আলো আপনাকে ডায়াবেটিস কমাতেও সহায়তা করতে পারে। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, গবেষকরা ইনসুলিন প্রতিরোধের এবং ডায়াবেটিসের কারণ হিসাবে কম Vitamin -D স্তর খুঁজে পেয়েছেন। গবেষণায় দেখা গেছে যে শরীরে ইনসুলিন তৈরিতে Vitamin-D গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যার Vitamin-D এর মাত্রা কম, টাইপ- 2 ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি তত বেশি। সুগার কমাতে এবং ভিটামিন ডি এর ঘাটতি এড়াতে প্রতিদিন 30 মিনিটের জন্য রোদে বেরিয়ে পড়ুন। এগুলি ছাড়াও আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে আপনার কমলার রস, সয়া দুধ, পনির, দই এবং সিরিয়াল জাতীয় ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবারগুলি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

৯. ডায়াবেটিস কমানোর উপায় — “জল”

জল পান করলে ডায়াবেটিস কমতে পারে। ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের পক্ষে জল শূন্যতার ঝুঁকি বেশি। গ্লুকোজ থেকে মুক্তি পেতে কিডনিগুলি প্রস্রাবের মধ্যে এটি নির্গত করার চেষ্টা করবে, তবে এটির জন্য জল প্রয়োজন। সুতরাং আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ যত বেশি হবে তত বেশি তরল পান করা উচিত। এ কারণে ডায়াবেটিসের অন্যতম প্রধান লক্ষণ তৃষ্ণা। আপনার শরীর থেকে চিনি কমাতে আপনার প্রতিদিন 2.5 লিটার জল খাওয়া উচিত।

১০. দারুচিনি দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

দারুচিনি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে এবং ইনসুলিন ক্রিয়াকলাপকে উদ্দীপিত করে দেহে রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়। ডায়াবেটিস কমাতে দারুচিনি একটি ভাল এবং সাধারণ ঘরোয়া উপায়। দারুচিনি হ’ল একটি অলৌকিক মশলা যা সমস্ত বৈশিষ্ট্য সমৃদ্ধ হয় এবং এটি জৈবিক ক্রিয়াকলাপগুলি যেমন সিনামিক অ্যাসিড এবং সিনামালডিহাইড (সিনামালডিহাইড) দিয়ে বোঝা হয়।এটি ডায়াবেটিস রোগীদের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে। এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে জন্য বিখ্যাত এবং ইনসুলিন ক্রিয়াকলাপটি আপনার দেহে উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করে।

আপনি এক কাপ গরম জলে আধা থেকে এক চা চামচ দারুচিনি মিশিয়ে প্রতিদিন পান করতে পারেন। আপনি চা, মসৃণ এবং বেকড মিষ্টান্নগুলিতে দারচিনি যোগ করতে পারেন।

১১. ডায়াবেটিস কমানোর উপায় — “কারীপাতা”

কারিপাতা ডায়াবেটিস কমাতে একটি ভাল ঘরোয়া উপায় হতে পারে। কারীপাতা ডায়াবেটিস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে কার্যকর কারণ এগুলি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে স্টার্চ থেকে গ্লুকোজ ভাঙ্গার হারকে কমিয়ে দেয়।

১২. অ্যালোভেরা দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

অ্যালোভেরা গ্রহণ সুগার হ্রাস করার জন্য একটি উপকারী চিকিত্সা। অ্যালোভেরা ফাইটোস্টেরল সমৃদ্ধ।এটি টাইপ- 2 ডায়াবেটিস পীড়িত ব্যক্তিদের উপর অ্যান্টি-হাইপারগ্লাইসেমিক প্রভাব ফেলতে পারে। পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেয় যে এটি আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে একটি নিরাপদ এবং প্রাকৃতিক উত্স। এছাড়াও আপনি হলুদ এবং অ্যালোভেরার মিশ্রণ প্রস্তুত করতে পারেন। এই ভেষজ ওষুধটি রক্তে গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যবহৃত হয়।

১৩. নিয়মিত ব্যায়াম করে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

নিয়মিত ব্যায়াম আপনাকে ওজন হ্রাস করতে এবং ইনসুলিন সংবেদনশীলতা বাড়াতে সহায়তা করে। ব্যায়াম আপনার পেশীগুলিকে শক্তি এবং পেশী সংকোচনের জন্য রক্তে চিনির ব্যবহার করতে সহায়তা করে। আপনার যদি রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণে সমস্যা হয় তবে আপনার নিয়মিত আপনার চিনির স্তর পরীক্ষা করা উচিত। ব্যায়ামের ভাল ফর্মগুলির মধ্যে রয়েছে ওজন উত্তোলন, দ্রুত হাঁটাচলা, দৌড়ানো, বাইক চালানো, নাচ, হাইকিং এবং সাঁতার কাটা ইত্যাদি।

১৪. পেয়ারা খেয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

Vitamin C ও ফাইবারের পরিমাণ বেশি থাকার কারণে পেয়ারা খাওয়া রক্তে শর্করার মাত্রা ধরে রাখতে সহায়ক হতে পারে। এটি বিপাককে ধীর করে দেয়, ফলে খাদ্য থেকে সুগার ভাল রক্তে শর্করার শোষণের দিকে নিয়ে যায়। ডায়াবেটিস রোগীদের পক্ষে সুগারের পরিমাণ হ্রাস করার জন্য পেয়ারা ফলের খোসা না খাওয়াই ভাল। তবে, দিনে দিনে খুব বেশি পেয়ারা গ্রহণের পরামর্শ দেওয়া হয় না, কারণ এতে পটাসিয়াম রয়েছে যা শরীরের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে।

১৫. তুলসী পাতা দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা বাড়াতে পবিত্র তুলসীর পাতায় অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং প্রয়োজনীয় তেলের মিশ্রণ পাওয়া যায়। সম্মিলিতভাবে, এই যৌগগুলি যেমন – ইউজেনল, মিথাইল ইউজেনল এবং কেরিওফিলিন, অগ্ন্যাশয় বিটা কোষগুলিকে, যা ইনসুলিন তৈরির জন্য দায়ী, সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে। তুলসী পাতার একটি অতিরিক্ত সুবিধা হ’ল পাতায় উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলি অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হ্রাস করে। অতিরিক্তভাবে, এটিও পাওয়া গেছে যে তুলসী ইনসুলিন উত্পাদন বাড়ায় এবং গ্লুকোজের মাত্রা দ্রুত 7% এবং খাবারের পরে রক্তে শর্করার মাত্রা 17% হ্রাস করে। রক্তের শর্করার মাত্রা কমাতে আপনি খালি পেটে তুলসী পাতা পুরো বা প্রায় এক চা চামচ তুলসী পাতার রস নিতে পারেন।

১৬. তিসি বীজ দিয়ে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় —

তিসি বীজ (Flaxseeds) অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে সমৃদ্ধ এবং সেগুলি গ্রহণের ফলে ইনসুলিন হ্রাস পেতে পারে, সম্ভবত শরীরে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস হ্রাস হওয়ার কারণে। তিসির বীজে ফাইবারের পরিমাণও বেশি এবং ফলে চর্বি এবং শর্করার যথাযথ শোষণে সহায়তা করে। ফ্লেক্সসিড গ্রহণ ডায়াবেটিস পরবর্তী চিনির মাত্রা প্রায় 28 শতাংশ হ্রাস করতে সহায়তা করে এবং ইনসুলিন সংবেদনশীলতা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক চা চামচ গুঁড়ো ফ্ল্যাকসিডের গুঁড়া এক গ্লাস গরম জল দিয়ে পান করুন। তবে, প্রতিদিন 2 টেবিল চামচ বেশি ফ্ল্যাকসিডের বীজ গ্রহণ করবেন না।

টাইপ ১ ডায়াবেটিসএবং টাইপ ২ ডায়াবেটিস এর পার্থক্য

হৃদরোগ হবার প্রধান বা একমাত্র কারণ ডায়াবেটিস নয়, তারপরও ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে হৃদরোগ হবার সম্ভবনা বেশি থাকে। হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে তাই বেশ কিছু কাজ নিয়মিত করে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে যেমন, ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রনে রাখা, ব্যায়াম বা কায়িক পরিশ্রম করা, স্বাস্থ্যকর খাদ্য গ্রহণ করা ইত্যাদি। টাইপ ১ এবং টাইপ ২ ডায়াবেটিসের মধ্যে বেশ কিছু পার্থক্য রয়েছে, এর মাঝে প্রচলিত কিছু পার্থক্য নিচে দেয়া হলোঃ 

টাইপ ১ ডায়াবেটিস টাইপ ২ ডায়াবেটিস
টাইপ ১ ডায়াবেটিস মূলত জেনেটিকাল সমস্যার কারণে হয়ে থাকে এবং অপ্রাপ্তবয়স্কদের মাঝে অধিক হারে হতে দেখা যায়। টাইপ ২ ডায়াবেটিস খাদ্যাভ্যাস বা ওজন সংক্রান্ত কারণে হবার সম্ভবনা থাকে, যার লক্ষণ ধীরে ধীরে প্রকাশ পায়।  
টাইপ ১ ডায়াবেটিস সাধারণত টাইপ ২ ডায়াবেটিস থেকে তুলনামূলক কম হয়ে থাকে। একে জুভেনাইল (juvenile) ডায়াবেটিসও বলা হয় কারণ সাধারণত যাদের অল্প বয়সে ডায়াবেটিস ধরা পড়ে তাদের মাঝেই টাইপ ১ ডায়াবেটিস হবার প্রবণতা বেশি লক্ষ করা যায়।  টাইপ ২ ডায়াবেটিস বেশিরভাগ ক্ষেত্রে প্রাপ্তবয়স্কদের হয়ে থাকে। কিন্তু বর্তমান সময়ে অপ্রাপ্তবয়স্কদের মাঝেও এর প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। সাধারণত স্থূলকায়, অধিক ওজনের মানুষের মাঝে টাইপ ২ ডায়াবেটিস বেশি পরিলক্ষিত হয়। 
হাইপোগ্লাইসেমিয়া (hypoglycemia) বা রক্তে সুগারের পরিমাণ কমে যাবার সম্ভবনা টাইপ ১ ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে বেশি হতে দেখা যায়। নির্দিষ্ট ধরণের ঔষধ সেবন অথবা ইনসুলিন নেবার প্রয়োজন যে সকল টাইপ ২ রোগীর নেই, তাদের রক্তে সুগারের লেভেল কমে যাবার সমস্যা সাধারণত দেখা যায় না। 
অপ্রাপ্ত বয়স্কদের মাঝে অধিক মাত্রায় দেখা গেলেও বিভিন্ন পরীক্ষায় দেখা গেছে ৪০ বা এর কম বয়স্ক ব্যক্তিদের টাইপ ১ ডায়াবেটিস হবার সম্ভবনা বেশি থাকে। তবে ৪০ উর্ধ্ব মানুষেরও ডায়াবেটিস হতে পারে। দক্ষিণ এশিয়ান বাদে বাকি অঞ্চলগুলোতে সাধারণত ৪০ বছরের বেশি বয়স্কদের মাঝে টাইপ ২ ডায়াবেটিস হতে দেখা যায়, তবে দক্ষিন এশিয়দের মাঝে ২৫ বছরের বেশি বয়স্কদের মধ্যেও টাইপ ২ ডায়াবেটিসের সংক্রামণ লক্ষ করা যায়। 
টাইপ ১ ধরণের ডায়াবেটিস দ্রুত প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করে, যে কারণে এ ধরণের ডায়াবেটিস অগ্রাহ্য করা তুলনামূলক ভাবে কঠিন। টাইপ ২ ডায়াবেটিস ধীরে ধীরে বিস্তারলাভ করে, বিশেষ করে প্রাথমিক অবস্থাতে। এ কারণে টাইপ ২ ডায়াবেটিস হলেও অনেক সময় সেটা বুঝতে বেশ কিছুটা সময় লেগে যেতে পারে।
যেখানে দেহ মোটেও ইনসুলিন উত্পাদন করে না। যা শরীর পর্যাপ্ত ইনসুলিন উত্পাদন করে না বা যা ইনসুলিন উত্পাদন করে তা চিনির শোষণে সঠিকভাবে কাজ করে না আমাদের রক্ত ​​থেকে।

ডায়াবেটিস সারানোর উপায় বা (ডায়াবেটিস) রোগীর খাদ্য তালিকা:

আমাদের দৈনন্দিন লাইফ স্টাইলকে একটু ব্যালেন্স করলে সুগার কন্ট্রোল করা যায় অতি সহজেই। যেমন- খাদ্য তালিকা মেনটেন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপায়, রক্তে সুগারের পরিমাণ কন্ট্রোল করার জন্য।

আরও পড়ুনঃ-

সুগার(ডায়াবেটিস) রোগীর খাদ্য তালিকা এমন হওয়া উচিত:

  • চিনি বা মিষ্টি পরিত্যাগ করতে হবে।
  • কার্বহাইড্রেট বা শর্করা জাতীয় খাবার না খাওয়া
  • ক্যালোরিযুক্ত খাবার পরিমাণ মত খাওয়া।
  • নির্দিষ্ট সময়ে খাওয়া অনিয়ম না করা।
  • অভুক্ত না থাকা অল্প অল্প করে বারবার খাওয়া।
  • তেতো জাতীয় খাবার বেশি পরিমাণে খাওয়া।
  • সাদা আটা বা ময়দার রুটির পরিবর্তে ভুসিযুক্ত লাল আটা খেতে হবে।
  • ফাস্টফুড পরিত্যাগ করতে হবে।
  • ধূমপান পরিত্যাগ করতে হবে।
প্রতিদিনসময়করণীয়
সকাল ২ দিন খালি পেটে৬-৭টারাতে (১চামচ জিরা) ভেজানো ১গ্লাস জল
৪ দিন খালি পেটে সকালে৬-৭টাঅ্যালভেরার জুস
২ ঘন্টা গ্যাপ একটু পর৯ টাগ্রীন টি, ক্রীমক্রেকার বিস্কুট
বেলায়১১ টারুটি সব্জি, ডিম সিদ্ধ ও ফল
দুপুর২ টাভাত, মুসুর ডাল/সোয়াবিন/রাজমা,
মাছ/ডিম/মাংস ও সবুজ শাক সবজি।
সন্ধ্যা৫-৬টাগ্রীন টি, মুড়ি/বিস্কুট
রাতে৯-১০টাভাত/রুটি, সবজি, মাছ বা ডিম

সুগার(ডায়াবেটিস) কন্ট্রোল করার বা কমানোর(সারানোর) উপায় গুলির মধ্যে অন্যতম হল খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণ।

ডায়াবেটিস কমানোর উপায়

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button