অপ্রয়োজনীয় বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম ২০২২

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম ২০২২ 

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম জানতে চান? তাহলে আপনি সঠিক আর্টিকেলটি নির্বাচন করেছেন। বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার জন্য অথবা বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করার জন্য আপনার বিকাশ একাউন্টের ব্যালেন্স জিরো জিরো করতে হবে। আপনার ব্যালেন্সে যদি কোন টাকা থাকে প্রথমে সে টাকা 00 করতে হবে।   

এরপর আপনাকে চলে যেতে হবে বিকাশ এর কাস্টমার কেয়ারে! যার নামে বিকাশ একাউন্ট খোলা বা যায় ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী বিকাশ একাউন্ট টা রয়েছে, তাকে স্ব-শরীরে বিকাশের কাস্টমার কেয়ার অফিসে যেতে হবে। অবশ্যই সাথে করে সিমটা ও নিয়ে যেতে হবে।

এইগুলো পড়তে পারেনঃ-

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

যে যাই বলুক না কেন আপনি কখনো নিজে নিজে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে পারবেন না। বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে করতে হলে আপনাকে অবশ্যই বিকাশ অফিসে যোগাযোগ করতে হবে। আপনি আপনার পার্শ্ববর্তী কোন বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে গিয়ে খুব সহজে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে পারবেন। কিন্তু বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার ক্ষেত্রে আপনার কিছু কাজ আছে। বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম – বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে হলে দুটি জিনিসের দরকার পরে। 

  • ১) উপরে আমি যেমন আগেই বললাম যে NID কার্ড দিয়ে ওই একাউন্ট ওপেন করেছেন সেটা সঙ্গে নিয়ে বিকাশ অফিস এ ভিসিট করতে হবে।আর যদি আপনার কোনো ফ্যামেলী মেম্বার যথা বাবা,মা,ভাই,বোন এর NID কার্ড ব্যবহার করে থাকেন তাহলে তাকেও অফিসে সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে। 
  • ২) বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করার আগে সেই একাউন্টের blance 0 করে দিতে হবে।

বিকাশ একাউন্ট চিরতরে ডিলিট করতে এই ২ টি কাজ করার প্রয়োজন পড়বে। NID কার্ড ও একাউন্ট শূন্য করার পর আপনি অফিস এ ভিসিট করুন,তবেই আপনার একাউন্ট বন্ধের কাজ পুরোপুরি কার্যকরী হবে।

আমরা সবাই জানি বিকাশ একাউন্ট হলো ব্রাক ব্যাংকের একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। বর্তমানে এটি অনেক জনপ্রিয় এবং নানাবিধ সুবিধা এতে রয়েছে। যার কারণে বেশিরভাগ মানুষ এই বিকাশ একাউন্ট ব্যবহার করেন। আপনিও হয়তো একজন বিকাশ গ্রাহক। বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম হয়তো আমরা অনেকেই জানি। কিন্তু বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম তথা bkash id disable আমরা বেশির ভাগেই জানিনা। তাই আমার আজকের এই পোস্ট।

কিভাবে বিকাশ অ্যাকাউন্ট ডিলিট করা যায়?

আপনি যদি বিকাশ অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে চান, প্রথমত সেটা কাস্টমার কেয়ার এ কল করে বা মোবাইল অ্যাপস এর সাহায্যে সম্ভব নয়। সেজন্য ফিজিক্যালি একাউন্টে ওনার কে বিকাশ অফিসে ভিজিট করে সেই অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে হবে। তার জন্য কিছু করণীয় আছে সেগুলো আমরা জানবো।

যে কারণেই আপনি বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে চান, তার জন্যএকাউন্ট মালিক (owner) বা যিনার NID কার্ড দেওয়া আছে তাকে বিকাশ অফিস যেতে হবে।  তাই নিকটবর্তী বিকাশ অফিস এ ভিসিট করুন। এবার এখানে আপনার নিজের অ্যাকাউন্ট হলে কোনো সমস্যা নেই কিন্তু ,যদি পরিবারের অন্য কোন মেম্বার এর হয় মানে একাউন্ট টি যার  NID কার্ড দিয়ে খুলা হয়েছে আপনাকে তাকে সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে। 

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম হল বিকাশ অফিস এ ভিসিট করে কাস্টমার কেয়ার অফিসার কে আপনার সমস্যার কথা বলুন ,তারা সেটি সমাধান করার চেষ্টা করবে। 

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার ধাপসমূহঃ

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম অনুযায়ী প্রথমত, আপনার বিকাশ একাউন্ট ব্যালেন্স শূন্য করে নিতে হবে। অর্থাৎ আপনার একাউন্টে কোন টাকা এমনকি কোনো পয়সাও থাকতে পারবে না। কারণ আপনার (bkash account)বিকাশ একাউন্টে থাকা প্রতিটি টাকা বা পযসার মালিক আপনি নিজে।

তাই বিকাশ কর্তৃপক্ষ আপনাকে আপনার সকল টাকা পরিশোধ করতে বাধ্য। তাই আপনার অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স জিরো করা ছাড়া আপনি স্থায়ীভাবে আপনার বিকাশ একাউন্ট বন্ধ (permanently delete bkash account) করতে পারবেন না।

আপনি হয়তো ভাবছেন কীভাবে ব্যালেন্স 0 করা যায়। আপনি চাইলে ব্যালেন্স 0 করার জন্য কয়েকটি উপায় অনুসরণ করতে পারেন। উপায় গুলো হল –

১. ব্যালেন্সে যদি কম টাকা থাকে তখন আপনি চাইলে টাকাগুলো মোবাইলে রিচার্জ করে নিতে পারেন।

২. আবার চাইলে আপনার বিকাশ একাউন্টে থাকা সব টাকা সেন্ড মানি করে টাকাগুলো অন্য কাউকে পাঠাতে পারেন।

৩. এরপরও আপনার একাউন্টে যদি কিছু পয়সা থেকে যায় আপনি চাইলে অন্য কারো কাছ থেকে টাকা নিয়ে এগুলো পুরো করে নিতে পারেন।

ধরুন, আপনার একাউন্টে ২ টাকা ৫০ পয়সা আছে। এখন আপনি অন্য কারো কাছ থেকে যদি ৭ টাকা ৫০ পয়সা সেন্ড মানি করে নেন তাহলে আপনার বরাবর ১০ টাকা হয়ে যাবে। এবার এই ১০ টাকার পুরোটা রিচার্জ করে ফেলুন অথবা কাউকে সেন্ড করে দিন। এখানে দেখানো টাকার পরিমান শুধুমাত্র উদাহরণ হিসেবে দেখিয়েছি। এভাবে একটা অনুমান করে আপনি আপনার একাউন্টে টাকা বরাবর করে রিচার্জ বা সেন্ড মানি করে ব্যালেন্স ০ করে নিন।

এবার যার নামে বিকাশ একাউন্ট রয়েছে তার আইডি কার্ড দরকার হবে। কারন আইডি কার্ডসহ বিকাশ একাউন্টটি যার নামে রয়েছে তাকে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে যেতে হবে। যদি আপনি আপনার নিজের বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে চান তাহলে আপনাকে নিজের ভোটার আইডি কার্ড নিয়ে আপনাকে যেতে হবে। সাথে করে যে সিমে বিকাশ চালু ছিল ওই সিমটিও (bkash account number) নিতে পারেন। যদি প্রয়োজন হয় তাহলে সমস্যায় পরবেন না।

এইগুলো পড়তে পারেনঃ-

বিকাশ একাউন্ট নাম পরিবর্তন করতে কি প্রয়োজন পরে –

এবার বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম না বিকাশ একাউন্ট এর নাম পরিবর্তন বা মালিকনা পাল্টাতে হলে কি করণীয় সেটা জেনেনিন  –

এই সমস্যা টি নিয়ে কাস্টমার কেয়ারে কল করলে সেখানে আমাকে জানানো হলো, একাউন্টের নাম পরিবর্তন বা মালিকানা পাল্টানোর আগে সেই একাউন্ট ডিএক্টিভ করতে হবে। তার জন্য উপরে বলা একই প্রসেস ফলো করুন  যথা – অফিসে গিয়ে NID কার্ড দেখিয়ে atfirst একাউন্ট কে ডিএক্টিভ করুন ও balance 0 করে দিন। 

তারপর সেই অ্যাকাউন্ট পুনরায় যার নামে খুবলেন তার পাসপোর্ট ছবি ও NID কার্ড টির প্রয়োজন পড়বে। তাই আপনারা অফিসে যাওয়ার আগে যার একাউন্ট তাকে ও যার নামে একাউন্ট পরিবর্তন হবে দুজনেই  NID কার্ড সঙ্গে নিয়ে বিকাশ অফিসে ভিসিট করুন। আর হ্যা, মনেকরে যার নামে একাউন্ট পরিবর্তন হবে তার পাসপোর্ট ছবি নিয়ে যেতে ভুলবেন না।

এছাড়া আপনার যদি কোনো অন্য সমস্যা থাকে যেমন যার একাউন্ট সে দেশের বাইরে আছে ,বা আপনি যে একাউন্ট টি ব্যবহার করছেন তার নাম কার NID কার্ড দেওয়া আছে এই গুলি কিছুই জানেন না তাহলে বিকাশ হেল্পলাইন নম্বর 16247 তে কল করে বা বিকাশ অফিসে ভিসিট করে জানতে পারেন। 

One Comment

  1. বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার জন্য অথবা বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করার জন্য আপনার বিকাশ একাউন্টের ব্যালেন্স জিরো জিরো করতে হবে। আপনার ব্যালেন্সে যদি কোন টাকা থাকে প্রথমে সে টাকা 00 করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button